Tech

উইন্ডোজ ১১ এ পাসকি ব্যবহার করার নিয়ম

আপনি যদি আপনার পাসওয়ার্ড এর গোপনীয়তা নিয়ে চিন্তিত থাকেন তাহলে আপনার নিরাপত্তার স্বার্থে পাসকি অনেক ভালো বিকল্প অপশন হতে পারে। এটি আপনাকে টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশনের জন্য সম্পূর্ণরূপে পাসওয়ার্ডগুলো বাদ দিয়ে দেয় যা অনন্য পাসওয়ার্ডের থেকেও আরও নিরাপাদ এবং সুবিধাজনক। 

পাসকিগুলো হলো আপনার ফোন বা অন্য ডিভাইসগুলো ব্যবহার করার একটি উপায় যাতে নিরাপদে বিভিন্ন সাইট বা সার্ভিস গুলোতে লগইন করা যায়। এটি এমন একটি সেবা যেটি আপনি এখন পর্যন্ত আপনার ফোনে ব্যবহার করার সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু পাসকিগুলো এখন উইন্ডোজ ১১ এর 22H2 বিল্ডের একটি অংশ এবং আপনি এখনই সেগুলো ব্যবহার করা শুরু করে দিতে পারেন। আমাদের আজকের এই আর্টিকেলে আমরা কিভাবে উইন্ডোজ ১১ এ পাসকি ব্যবহার করবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। 

পাসকি মূলত কী?

পাসকি মূলত পাসওয়ার্ড লগইনের বিকল্প একটি ব্যবস্থা যেটি আপনার পরিচিতি নিশ্চিত করার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। পাসকিতে দুইটি প্রধান উপাদান থাকে। একটি হলো পাবলিক কি যেটি আপনি যেই ওয়েবসাইট বা সার্ভিসে লগ ইন করতে চান সেটি সরবরাহ করে এবং আরেকটি হলো প্রাইভেট কি যেটি আপনার ডিভাইস সরবরাহ করে। 

আপনি যখন কোনো একটি সাইট কিংবা সার্ভিসে লগ ইন করতে চাবেন তখন আপনার ডিভাইস আপনাকে প্রাইভেট কি এর মাধ্যমে যাচাই করে নিবে তবে এটি সার্ভিসকে সেই তথ্য প্রদান করবে না। এর অর্থ হলো আপনার নিরাপত্তা ক্ষুন্ন হবার কোনো ধরনের সম্ভাবনা নেই। এছাড়াও আপনার ডিভাইসে থাকা প্রাইভেট কি পুনরুদ্ধার করা অসম্ভবের পর্যায়ে। এটি আপনাকে অনন্য কোনো পাসওয়ার্ড মনে রাখার সমস্যার হাত থেকে বাঁচিয়ে তোলে। এছাড়া এটি আপনার একাউন্ট হ্যাক করা প্রতিরোধের জন্য আরো একটি শক্ত ধাপ প্রদান করে দেয়।

পাসকি আপনাকে আপনার ইউজারনেম কিংবা ইমেইল প্রদান করে লগ ইন করার জন্য আপনার আইডি পাসকি এর মাধ্যমে কনফার্ম করে ফেলে। এটি ওয়েবক্যামে আপনার চেহারা দেখানোর মতো সহজ একটি কাজ। যার জন্য উইন্ডোজ হ্যালো অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। পাসকি মূলত একটি পাসওয়ার্ড এবং টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশনের সংমিশ্রিত রূপ। 👉 পাসওয়ার্ড ছাড়া লগিন – পাসকি সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

ওয়েবসাইটে পাসকি কিভাবে ব্যবহার করবেন?

আপনি চাইলে পাসকি অনেক ধরনের ওয়েবসাইটে ব্যবহার করতে পারবেন, তবে আমাদের উদাহরণের সুবিধার্থে আমরা জিমেইল ব্যবহার করছি।

ধাপ ১ঃ গুগল পাসকি পেজে নেভিগেট করুন। যদি প্রমটে লগ ইন করতে বলে তাহলে লগ ইন করে ক্রিয়েট এ পাসকি নির্বাচন করুন। গুগল মাইএকাউন্ট সেটিংসের সিক্যুরিটি সেটিংস সেকশনে পাসকি অপশন পাবেন।

google account passkey option

ধাপ ২ঃ আপনার পরিচিতি কনফার্ম করার জন্য একটি পপ আপ মেসেজ স্ক্রিনে ভেসে উঠবে৷ আপনি যদি এখনো সেট আপ না করে থাকেন তাহলে স্ক্রিনে আসা সকল প্রমট অনুসরণ করে সেট আপ করে নিতে পারবেন। আপনার কাছে যদি বায়োমেট্রিক কিংবা অন্য কোনো লগ ইন সিস্টেম ব্যবহার করে পরিচিত হওয়ার সুবিধা থাকে তাহলে সেগুলোকে পাসকির পরিচিতি হিসেবে ব্যবহার করুন। যদি গুগল আপনাকে ডিভাইস নির্বাচন করার সু্যোগ প্রদান করে তাহলে উইন্ডোজ হ্যালো লগইন করার পূর্বে আপনার কম্পিউটার নির্বাচন করুন।

ধাপ ৩ঃ এখন যেহেতু আপনি পাসকি তৈরি করে ফেলেছেন সেটি কাজ করছে কি না তা দেখে নেওয়া জরুরি৷ আপনার জিমেইল একাউন্টে প্রবেশ করে সেটিকে লগ আউট করে দিয়ে পুনরায় লগ ইন করার চেষ্টা করুন। আপনি যখন এটি ব্যবহার করতে যাবেন তখম গুগল আপনাকে আপনার পাসওয়ার্ডের পরিবর্তে পাসকি দেখানোর জন্য প্রমট নিয়ে আসবে। আপনি যদি নরমাল ভাবে আপনার পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে চান তাহলে ট্রাই এনাদার ওয়ে নির্বাচন করুন৷ নতুবা আপনি কন্টিনিউ নির্বাচন করে পাসকি এর মাধ্যমে লগ ইন করতে পারবেন।

ধাপ ৪ঃ একটি উইন্ডোজ হ্যালো পপ আপ সামনে আসবে যেখানে বায়োমেট্রিক লগ ইন, আপনার পিন কোড অথবা সিকিউরিটি কি এর জন্য একটি প্রমট সামনে আসবে। তবে এটি নির্ভর করবে আপনার উইন্ডোজ হ্যালো কিভাবে কনফিগার করা রয়েছে তার উপর। এটি প্রদান করার পরে ওকে সিলেক্ট করুন।

ধাপ ৫ঃ এর মাধ্যমে আপনি আপনার গুগল একাউন্টে লগ ইন করতে পারবেন। আপনার কাছে এখন গুগলে দ্রুত লগ ইন করার জন্য পাসকি রয়েছে। এটি একই ডিভাইসের ভিতরে একাধিক ব্রাউজারে সংরক্ষিত থাকবে। এর ফলে আপনি যদি আলাদা কোনো ব্যবহার উপযোগী ব্রাউজার ব্যবহার করেন তাহলে সেখানে খুব সহজেই আপনার পাসকি ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি চাইলে ভিন্ন ওয়েবসাইটেও পাসকি ব্যবহার করতে পারবেন।

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

windows 11 pc

উইন্ডোজ ১১ ব্যবহার করে কিভাবে পাসকি ম্যানেজ করবেন?

আপনি উইন্ডোজ ১১ ব্যবহার করে আপনার সকল পাসকি দেখে নিতে পারেন। তবে আপনি এগুলো দিয়ে খুব বেশি কিছু একটা করতে পারবেন না। আপনি চাইলেশুধুমাত্র আপনার যেগুলো আর দরকার নেই সেগুলো ডিলিট করতে পারবেন। এছাড়া আপনি কোন কোন সেবার জন্য পাসকি ব্যবহার করছেন সেটি চেক করার জন্য এটি অনেক ভালো একটি উপায়। 👉 উইন্ডোজে গোপন ইমার্জেন্সি রিস্টার্ট ফিচার কী এবং এর ব্যবহার জানুন

ধাপ ১ঃ উইন্ডোজ কী + I প্রেস করে উইন্ডোজ ১১ এর সেটিংস মেনু চালু করুন।

ধাপ ২ঃ বাম দিকের মেনু থেকে একাউন্টস নির্বাচন করুন। 

ধাপ ৩ঃ পাসকি সেটিংস নির্বাচন করুন। 

ধাপ ৪ঃ এই স্ক্রিন থেকে আপনি আপনার পাসকির লিস্ট খুজতে এবং ব্রাউজ করতে পারবেন। এদের মধ্যে কোনোটি ডিলিট করার জন্য ডান দিকে থাকা থ্রী ডট বিশিষ্ট মেনু থেকে ডিলিট নির্বাচন করুন। 

আমরা অনেক সময় পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ব্যবহার করতে দ্বিধাবোধ করে থাকি। পাসওয়ার্ড ম্যানেজারের পরিবর্তে পাসকি অনেক ভালো একটি বিকল্প হতে পারে। পাসকি সম্পর্কিত আমাদের এই আর্টিকেলটি আপনাদের কেমন লেগেছে তা আমাদের কমেন্ট এর মাধ্যমে জানিয়ে দিতে পারবেন। এছাড়াও নিত্য নতুন টেকনোলজি বিষয়ক নানা ধরনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এবং প্রয়োজনীয় সকল টিপস এন্ড ট্রিকস পেতে চোখ রাখুন আমাদের এই ওয়েবসাইটে। 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button