News

ফিলিস্তিন সংকটে ‘দুই রাষ্ট্র সমাধান’ চান জর্ডানের রাজা

গাজায় অবিলম্বে যুদ্ধ বন্ধ করা, জরুরি মানবিক সহায়তা প্রদান, ফিলিস্তিনি জনগণের স্থানান্তর প্রত্যাখ্যান এবং দুই-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ভিত্তিতে একটি স্থায়ী সমাধানের আহ্বান জানিয়েছেন জর্ডানের রাজা দ্বিতীয় আব্দুল্লাহ।

ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে সংঘাত নিরসনে শনিবার মিসরের রাজধানী কায়রোর শান্তি সম্মেলনে তিনি এ আহ্বান জানান। এসময় পশ্চিমা ও ইউরোপীয় দেশগুলোর নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমাদের অঞ্চল একটি শান্তির বার্তা নিয়ে এসেছে।

জর্ডানের রাজা বলেন, ইসরায়েলের নেতৃত্বকে অবশ্যই বুঝতে হবে যে, তাদের নিরাপত্তা উদ্বেগের কোনো সামরিক সমাধান নেই। তারা ৫০ লাখ ফিলিস্তিনিকে নিজেদের দখলে রাখতে পারে না, তাদের বৈধ অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে পারে না এবং ফিলিস্তিনিদের জীবন ইসরায়েলিদের চেয়ে কম মূল্যবান নয়।

আবদুল্লাহ বলেন, গাজায় যে নিরবচ্ছিন্ন বোমা হামলা চলানো হচ্ছে, আমরা বলেছি যে- এটা নিষ্ঠুর এবং অসংবেদনশীল- প্রতিটি স্তরেই। এটা অবরুদ্ধ ও অসহায় মানুষের সম্মিলিত শাস্তি। এটা আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের স্পষ্ট লঙ্ঘন। এটা যুদ্ধাপরাধ।

তিনি ‘বৈশ্বিক নীরবতা’ পালন এবং পূর্ববর্তী সংঘাতের জন্য ইসরায়েলকে দায়ী না করায় নেতাদের সমালোচনা করেন।

জর্ডানের রাজা বলেন, গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের সম্পূর্ণ অবরোধ আরোপের পর দুই সপ্তাহ পার হয়ে গেছে। তা সত্ত্বেও এখনো বিশ্বের বেশিরভাগ অংশই নীরবতা পালন করছে। উপরন্তু আরব বিশ্বকে প্রকটভাবে এবং স্পষ্ট শুনতে হচ্ছে যে, ফিলিস্তিনিদের জীবন ইসরায়েলিদের চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের জীবন অন্যদের চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি বলেন, ইসরায়েল আক্ষরিক অর্থেই গাজার বেসামরিক নাগরিকদের ক্ষুধার্ত রেখেছে, কিন্তু কয়েক দশক ধরে ফিলিস্তিনিরা আশা, স্বাধীনতা এবং ভবিষ্যতের অনাহারে ভুগছে।

বিষয়টিকে ‘দখলদারত্বের অনাচার’ বলেও অভিহিত করেন আবদুল্লাহ।

জর্ডানের রাজা আরও বলেন, ইসরায়েলের জনগণের প্রতি আমাদের সম্মিলিত ও ঐক্যবদ্ধ বার্তাটি হলো- আমরা আপনাদের এবং ফিলিস্তিনিদের জন্য শান্তি ও নিরাপদ ভবিষ্যৎ চাই, যেখানে আপনাদের সন্তান এবং ফিলিস্তিনি শিশুদের আর ভয়ের মধ্যে বসবাস করতে হবে না। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় হিসেবে আমাদের কর্তব্য হলো একটি অর্থপূর্ণ রাজনৈতিক প্রক্রিয়া পুনরায় শুরু করার জন্য যা যা করা দরকার তা করা, যা আমাদের দুই-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ভিত্তিতে একটি ন্যায্য এবং টেকসই শান্তিতে নিয়ে যেতে পারে।

আরও পড়ুন: আমাদের ভূমি ছাড়ব না: ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট

বাংলাদেশ জার্নাল/এসএ

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button