Tech

অ্যাপলের ৫ লাখ টাকা দামের এই ডিভাইস নিজে নিজেই ফেটে যাচ্ছে

মাত্র কয়েকদিন আগেই মুক্তি পাওয়া অ্যাপল ভিশন প্রো নিয়ে যেনো অভিযোগের শেষ নেই ব্যবহারকারীদের। এবার শোনা যাচ্ছে নিজে নিজেই ফেটে যাচ্ছে অ্যাপলের ৫ লাখ টাকা দামের এই ডিভাইস। ৩৫০০ ডলার দামের ডিভাইসটি দেশে পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫ লাখ টাকায়। এতো টাকার এই ডিভাইস এর গ্লাস ফেটে যাওয়ার বিষয়টি কিভাবে ঘটছে সে নিয়ে বেশ বিভ্রান্তিতে আছেন ক্রেতাগণ। 

MacRumors সর্বপ্রথম এই সমস্যাটি সম্পর্কে জানায় যখন r/VisionPro সাবরেডিটে পাঁচটি আলাদা পোস্টে একই কথা জানা যায়। এমনকি Engadget পর্যন্ত জানায় তাদের রিভিউ ইউনিটে এই সমস্যা ছিলো।

মজার ব্যাপার হলো ব্যবহারকারীদের আপলোড করা সকল ছবি দেখলে খেয়াল করা যায় প্রতিটি ইউনিটেই একই স্থানে ভারটিক্যাল হেয়ারলাইন ক্র্যাক দেখা যাচ্ছে, একদম ঠিক নাকের উপরিভাগে। সকল রেডিট ব্যবহারকারীই এই বিষয় নিশ্চিত করেন যে হাত থেকে পড়ে যাওয়ার মত কোনো ঘটনা ঘটেনি তাদের অ্যাপল ভিশন প্রো ডিভাইসের সাথে যা থেকে এই ধরনের ফেটে যাওয়ার সমস্যা ঘটতে পারে।

রেডিট ইউজার @dornbirn জানান তিনি গ্লাসকে পরিস্কার করে, উপরে সফট কভার দিয়ে, কেইস এর মধ্যে প্যাক করে রেখে দিয়েছিলেন। পরেরদিন সকাল ঘুম থেকে উঠে তিনি দেখতে পান তার অ্যাপল ভিশন প্রো ফেটে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত অ্যাপল ভিশন প্রো ক্রেতাগণ জানিয়েছেন তারা তাদের ডিভাইস হয়ত কেইসের মধ্যে রেখেছিলেন, নয়ত সফট কভার দেওয়া ছিলো।

ধারণা করা হচ্ছে কেইস কিংবা কভার এর হিটিং ইস্যুর কারণে এই সমস্যা হচ্ছে চার্জিং এর সময়। আবার এটি ম্যানুফ্যাকচারিং সম্পর্কিত সমস্যা হতে পারে, হতে পারে এটি ডিজাইনজনিত কোনো ভুল যা নির্দিষ্ট এরিয়াতে অতিরিক্ত চাপ প্রদান করছে এবং যার ফলে ডিভাইসে ফাটল ধরছে। আবার এই ফেটে যাওয়ার ব্যাপারটি সাধারণ কসমেটিক ইস্যুও হতে পারে, কারণ এর ফলে কিন্তু ভিশন প্রো এর কোনো ক্যামেরার সমস্যা হচ্ছেনা।

Apple Vision Pro

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

বলে রাখা ভালো ভিশন প্রো তো বেশ দামি বটে, স্বভাবতই এটি রিপেয়ার করার খরচও অনেক। সাধারণত অ্যাপল ভিশন প্রো এর গ্লাসে কোনো সমস্যা হলে তা ঠিক করতে ৭৯৯ ডলার গুণতে হবে, তবে অ্যাপল কেয়ার সাবস্ক্রিপশন থাকলে সেক্ষেত্রে খরচ কমবে। এক ব্যবহারকারী অ্যাপল স্টোরে গিয়ে ব্যাপারটি জানালে এই ক্র্যাক ফিক্স করার জন্য ৭৯৯ ডলার এর ফর্দ তাকে ধরিয়ে দেওয়া হয় বলে জানান।

এই সমস্যার বিস্তৃতি সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত করে কিছু বলে যাচ্ছেনা, এখন পর্যন্ত রেডিট এর মধ্যেই এই বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনা চলছে। অ্যাপল এখনো কোনো ধরনের মতামত জানায়নি এই বিষয়ে। 

এছাড়াও রেডিটরগণ আরো কিছু সাধারণ সমস্যা সম্পর্কে জানান। নিজে নিজে ফেটে যাওয়ার পাশাপাশি অ্যাপল এর অনলাইন সাপোর্ট কমিউনিটিতে অনেকে সাউন্ড সম্পর্কিত সমস্যা জানান। এছাড়া রেডিট ব্যবহারকারীগণ আই ট্র্যাকিং, খারাপ লো-লাইট পারফরম্যান্স, গ্লেয়ার ইস্যু, ইত্যাদি সমস্যার কথা জানান।

তবে বলে রাখা ভালো এসব সমস্যার বিস্তৃতি কেমন সে সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছেনা। অ্যাপল এর ডিভাইস যেহেতু, তাই অনেক বড় সংখ্যায় তৈরি করা হয়েছে এই ডিভাইস আর কিছু ডিভাইসে সমস্যা থাকার ব্যাপারটিও বেশ সাধারণ।

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button