News

১০ বছর পর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

মাদারীপুরে চাঞ্চল্যকর মোটরসাইকেল চালক হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি মো. সেন্টু শরীফকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তার আসামি সেন্টু শরীফ ১০ বছর পলাতক ছিলেন।

র‌্যাব সদর দপ্তর গোয়েন্দা শাখার সহযোগিতায় র‌্যাব-২ এবং র‌্যাব-৮ এর যৌথ অভিযানে রোববার রাজধানীর আগারগাঁও থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব-২ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) সিনিয়র এএসপি শিহাব করিম বলেন, গ্রেপ্তার সেন্টু শরীফ ২০১৩ সালে মাদারীপুর সদর থানার মস্তফাপুর এলাকায় চাঞ্চল্যকর মোটরসাইকেল চালক হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি।

মামলা সূত্রে জানা যায়, নিহত শাহাদাৎ ঘরামী ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০১৩ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার দিকে প্রতিবেশী মিরাজ ও সেন্টু গৌরনদীর বার্থী এলাকায় যাওয়ার কথা বলে শাহাদাৎ ঘরামীর মোটরসাইকেল ভাড়া নেন। বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি শেষে শাহাদাৎকে নির্জন এলাকায় নিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে মিরাজ ও সেন্টু। পরে মরদেহ আত্মীয় ফজেল শেখের মাধ্যমে মাদারীপুরের মস্তফাপুর ইউনিয়নের সিকি-নওহাটা এলাকার একটি পতিত জমিতে লুকিয়ে রেখে শাহাদাতের মোটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়।

স্থানীয় লোকজন মরদেহ দেখতে পেয়ে খবর দিলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভিকটিমের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠায়। ঘটনার দুদিন পর নিহতের বাবা বাদী হয়ে আসামি সেন্টু শরীফসহ তার সহযোগীদের আসামি করে মাদারীপুর সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় গ্রেপ্তার আসামি ১ বছর জেলহাজতে থাকার পর আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পান। কিন্তু আদালতে নিয়মিত হাজিরা না দিয়ে পলাতক থাকেন।

পরে মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামিদের বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়ায় গ্রেপ্তার আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত মামলার দীর্ঘ বিচারিক কার্যক্রম শেষে আসামির বিরুদ্ধে অপরাধের সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় আসামি সেন্টু শরীফকে মৃত্যুদণ্ড ও ৫০হাজার টাকা অর্থদন্ডাদেশ দিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ইস্যু করেন।

র‌্যাব কর্মকর্তা শিহাব করিম বলেন, গ্রেপ্তারি পরোয়ানাইস্যুর পর থেকে আসামিকে গ্রেপ্তারে র‌্যাব গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে। এরই ধারাবাহিকতায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি বলেন, গ্রেপ্তার সেন্টু শরীফ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজর এড়িয়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্রাক, মিনিবাস ও বাসের চালক হিসেবে চাকরি করে আত্মগোপনে থাকতেন। গ্রেপ্তারকৃতের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

আরও পড়ুন: ফরিদপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার

বাংলাদেশ জার্নাল/সুজন/আইজে

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button