News

ইসরায়েলে প্রাণহানি হাজার ছাড়িয়েছে

হামাস ও ইসরায়েলের মধ্যে চলমান যুদ্ধ চতুর্থ দিনে গড়িয়েছে। এখনো চলছে দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ইসরায়েলে নিহত বেড়ে ১০০৮ জনে দাঁড়িয়েছে। ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসের হামলায় তিন হাজার ৪১৮ জনের বেশি ইসরায়েলি নাগরিক আহত হয়েছেন।

বুধবার ইসরায়েল দূতাবাসের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

এদিকে, হামাসের হামলার জবাবে ফিলিস্তিনের গাজায় নির্বিচার বিমান হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী। এতে ৭৭০ জন নিহত এবং চার হাজার ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন বলে ফেসবুকে এক পোস্টে জানিয়েছে হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

তবে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার মাঝেও গাজা উপত্যকা থেকে শত শত রকেট ছোঁড়াছে ইসরায়েল। মঙ্গলবারও দক্ষিণের বেশ কয়েকটি শহরে শোনা যায় সতর্কতামূলক সাইরেনের আওয়াজ। বিমান হামলা চালিয়ে হামাসের সব ঘাঁটি গুড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। তিনি বলেছেন, এই হামলার জন্য ইসরায়েল প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রতিশোধ নেয়া মাত্র শুরু হয়েছে।

হামাসের হামলায় ইসরায়েলি নাগরিক ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জার্মানি, আয়ার‌ল্যান্ড, মেক্সিকো, ব্রাজিল, নেপাল, থাইল্যান্ড এবং ইউক্রেনের বেশ কয়েকজন নাগরিক নিহত ও অপহরণের শিকার হয়েছেন বলে জানা আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর গাজার ১৩টি স্বাস্থ্যকেন্দ্র ইসরায়েলি বাহিনী হামলা করে গুঁড়িয়ে দিয়েছে। আল জাজিরার কাছে যে ভিডিও ফুটেজ আছে তাতে দেখা গেছে, ইসরায়েলি বিমান হামলায় আহত শিশুদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

চলমান যুদ্ধ নিয়ে প্রথমবারের মতো মুখ খুললেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। মঙ্গলবার ক্রেমলিনে দেয়া ভাষণে এ সংকটের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নীতির সমালোচনা করেন রুশ প্রেসিডেন্ট।

পুতিন বলেন, দুর্ভাগ্যবশত মার্কিন প্রশাসন)উভয় পক্ষের কাছে গ্রহণযোগ্য সমঝোতা খুঁজে বের করার বিষয়ে উদ্বিগ্ন না। বরং তারা উভয় পক্ষের ওপর নিজেদের ধারণা চাপিয়ে দিতে চাইছে।

এ সংকটের সমাধানের জন্য স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের প্রয়োজন বলেও ভাষণে উল্লেখ করেন পুতিন। এসময় বেসামরিক জনসংখ্যার ক্ষয়ক্ষতি কমানোর জন্য হামাস ও ইসরায়েলের প্রতি আহ্বান জানান রুশ প্রেসিডেন্ট।

ফিলিস্তিনকে দ্বিখণ্ডিত করে ১৯৪৫ সালে সৃষ্টি হয় ইসরায়েলের। এরপর থেকে ফিলিস্তিনের বহু অঞ্চল দখল করেছে তারা। এছাড়া সাধারণ ফিলিস্তিনিদের উপর প্রতিনিয়ত অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে গেছে তারা। কিন্তু এত অপকর্ম করার পর ৭৫ বছর পার হয়ে গেলেও— কখনো এত বড় হামলার মুখোমুখি হতে হয়নি ইসরায়েলকে।


বাংলাদেশ জার্নাল/সামি

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button