Tech

যেসব কাজ অনলাইন ইনকাম বাড়াতে পারে

অনলাইন ইনকাম এর কাজের ক্ষেত্র প্রতিনিয়ত পরিবর্তন এর মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে, যার কারণে অনলাইন আয় করা অব্যহত রাখতে চাইলে নতুন দক্ষতার সাথে পরিচিত হওয়া বেশ জরুরি। একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে ক্যারিয়ারে এগিয়ে যাওয়াই হোক কিংবা নতুন কোনো ক্যারিয়ার শুরু করা হোক, কোন কাজের ক্ষেত্রগুলো সম্ভাবনাময় এবং অনলাইন ইনকাম এর সুযোগ বেশি, মার্কেটে চাহিদা বেশি, এসব বিষয় সম্পর্কে জেনে রাখা অত্যন্ত জরুরি।

এই পোস্টে জানবেন সেসব কাজ সম্পর্কে যেগুলো আপনার অনলাইন ইনকাম বাড়াতে পারে। এই পোস্টে আমরা সময়োপযোগী কিছু দক্ষতা সম্পর্কে জানবো যেগুলো ব্যবহার করে ভালো অংকের অনলাইন ইনকাম সম্ভব।

উল্লেখ্য যে, পোস্টে আলোচিত দক্ষতা বা কাজগুলো সহজ নয়, বরং সময় ও অধ্যাবসায় প্রয়োজন হবে শিখতে। কোনো কাজ ছাড়া বা কম দক্ষতায় অনলাইন ইনকাম করার চিন্তায় থাকলে পোস্টটি আপনার জন্য নয়। বরং আমরা যেসব দক্ষতা নিয়ে আলোচনা করেছি যেগুলো আসন্ন সময়ে আপনার অনলাইন ইনকামের পথ সুগম করবে। 

ডাটা এনালাইসিস

ডাটা কালেক্ট, অরগানাইজ, ইটারপ্রেটিং ও প্রেজেন্ট করে সেগুলো থেকে প্যাটার্ন, ট্রেন্ড ও ইনসাইট খুঁজে বের করার প্রক্রিয়াকে বলা হচ্ছে ডাটা এনালাইসিস। ডাটা এনালাইসিসের মাধ্যমে ব্যবসাগুলো সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে, পারফরম্যান্স বাড়ায় ও কাজের প্রক্রিয়া অপটিমাইজ করে। বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটে সবচেয়ে বেশি চাহিদা যে কাজের সেটি হলো ডাটা এনালাইসিস। ডাটা-ড্রিভেন প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রয়োজন অনেক পেশাদার লোকের যাতে তারা বড় মাপের ডাটা এনালাইজ করতে পারে। মাইক্রোসফট এক্সেল, গুগল শিটস, এসকিউএল, আর, পাইথন, ইত্যাদি টুলস ও ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করে ডাটা এনালাইসিস করা হয়ে থাকে। 

সফটওয়্যার ডেভলপমেন্ট

কম্পিউটার বা অন্য ডিভাইসে চালানোর জন্য সফটওয়্যার তৈরী, টেস্টিং ও মেইনটেইন করার প্রক্রিয়াকে সফটওয়্যার ডেভলপমেন্ট বলা হয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে সফটওয়্যার ডেভলপমেন্ট সবচেয়ে ডিমান্ডিং স্কিলগুলোর মধ্যে একটি। বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রি ও সেক্টরে প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে যার ফলে সফটওয়্যার ডেভলপমেন্ট এই কাজের অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়েছে। একজন সফটওয়্যার ডেভলপারের বিভিন্ন প্রোগ্রাম ল্যাংগুয়েজ, ফ্রেমওয়ার্ক, টুল, মেথডলজিতে দক্ষ হতে হয় কোনো কার্যকর সফটওয়্যার সল্যুশন তৈরী করতে। গিট, ডকার, জেনকিনস, কুবারনেটস, পাইথন, জাভা, সি++ ইত্যাদি হলো একজন সফটওয়্যার ডেভেলপারের জানা দরকার এমন কিছু প্রয়োজনীয় টুলস ও ল্যাংগুয়েজ।

ইউআই / ইউএক্স ডিজাইন

ইউআই ও ইউএক্স ডিজাইন একই বিষয় না হলেও আমরা এখানে দুইটিকে একসাথে রেখেছি কেননা এই দুইটি দক্ষতা কারো একইসাথে থাকলে একটি অনবদ্য ক্যারিয়ার তৈরী সম্ভব। 

ইউআই ডিজাইন হলো ইউজার ইন্টারফেস তৈরি করা এবং ইউএক্স ডিজাইন হলো ইউজার এক্সপেরিয়েন্স তৈরি করা। আপনি যদি উভয় দক্ষতার অধিকারি হতে পারেন, তবে কাজের ক্ষেত্রে একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনার চাহিদা বহুগুণ বেড়ে যাবে।

মূলত কোনো প্রোডাক্ট বা সার্ভিস এর সাথে একজন ব্যবহারকারী কিভাবে ইন্টারেক্ট করছে তা ডিজাইন করা হলো একজন ইউএক্স ডিজাইনার এর কাজ। আর এই কাজের ধারণা বা ডিজাইন তৈরি করেন একজন ইউআই ডিজাইনার। একটি ইন্টারফেস ঠিকঠাকভাবে কাজ করছে কিনা ও ব্যবহারকারীর ব্যবহারের উপযুক্ত কিনা তা নিশ্চিত করা একজন ইউএক্স ডিজাইনার এর কাজ। 

ওয়েব ডেভলপমেন্ট

ইন্টারনেট এর ব্যবহার যত বাড়ছে, তার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ওয়েব ডেভলপার এর চাহিদা। ওয়েবসাইট তৈরি ও মেইনটেইন, ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরি ও মেইনটেইন করার প্রক্রিয়াকে ওয়েব ডেভলপমেন্ট বলা হয়। বর্তমান সময়ে ওয়েব ডেভলপমেন্ট একটি ডিমান্ডিং স্কিল এই বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

ব্যবসা ও ব্যাক্তিগণ তাদের কাজের প্রয়োজনে ওয়েবসাইট তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন, যার ফলে ওয়েব ডেভলপার এর প্রয়োজন হয়ে থাকে। আর এই চাহিদা পূরণ করে আপনিও আয় করতে পারেন। এইচটিএমএল, জাভাস্ক্রিপ্ট, পিএইচপি, রুবি, ইত্যাদি হলো কিছু প্রযুক্তি যেগুলো একজন ওয়েব ডেভলপার এর জানা উচিত। এছাড়া ওয়ার্ডপ্রেস, বুটস্ট্র্যাপ, রিয়েক্ট, লারাভেল, এংগুলার, ইত্যাদি কিছু টুলস ও ফ্রেমওয়ার্ক যা একজন ডেভলপার এর জানা উচিত। 

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

IT professional working on a computer

প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট

কোনো লক্ষ্য, ক্ষেত্র, সময় ও বাজেট আছে এমন প্রজেক্ট প্ল্যান করা, এক্সিকিউট করা, মনিটর করা ও তা সফলভাবে সম্পন্ন করার প্রক্রিয়াকে প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট বলা হয়ে থাকে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের প্রয়োজনে প্রজেক্ট ম্যানেজার হায়ার করে থাকে যাতে তাদের লক্ষ্যে সুন্দরভাবে দ্রুত পৌঁছাতে পারে। একজন প্রজেক্ট ম্যানেজারের লিডারশিপ, কমিউনিকেশন, অরগানাইজেশন, প্রবলেম-সল্ভিং, ইত্যাদি বিষয়ে দক্ষ হতে হয়। একজন প্রজেক্ট ম্যানেজার এর কাজ হয়ে থাকে প্রদত্ত রিসোর্স ব্যবহার করে প্রয়োজনীয় লক্ষ্য অর্জনে প্রতিষ্ঠানকে সাহায্য করা। 👉 অনলাইনে কোন ধরনের কাজের চাহিদা বেশি? জানুন

ডিজিটাল মার্কেটিং

ডিজিটাল চ্যানেল ব্যবহার করে কোনো প্রোডাক্ট বা সার্ভিস প্রোমোট করার প্রক্রিয়াকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলা হয়। সোশ্যাল মিডিয়া, ওয়েবসাইট, ইমেইল, সার্চ ইঞ্জিন ইত্যাদি ডিজিটাল চ্যানেল ব্যবহার করে ডিজিটাল মার্কেটিং চালানো হয়। 

সকল ব্যবসা ও কনজ্যুমার ইতিমধ্যে অনলাইনের দিকে ঝুঁকছেন, যার ফলে ডিজিটাল মার্কেটিং যেকোনো ব্যবসার অত্যাবশ্যক অংশে পরিণত হয়েছে। একজন ডিজিটাল মার্কেটারকে কনটেন্ট ক্রিয়েশন, এসইও, এসইএম, এসএমএম, ইমেইল মার্কেটিং, এনালিটিকস, ইত্যাদি কাজে দক্ষ হতে হয়। গুগল এডস, ইন্সটাগ্রাম এডস, মেইলচিম্প, হাবস্পট, গুগল এনালিটিক্স, ইত্যাদি টুলস ও প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে থাকেন একজন ডিজিটাল মার্কেটার। 👉 ডিজিটাল মার্কেটিং কি? এটা থেকে কিভাবে আয় করে?

অনলাইন কোর্স

বর্তমানে শেখার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্মমে পরিণত হয়েছে অনলাইন মাধ্যম। ইউটিউব এর মত বিনামূল্যে শেখার প্ল্যাটফর্ম ও অনলাইন কোর্সের দিকে ঝুঁকছেন অধিকাংশ শিক্ষার্থী যাতে কোনো বিষয়ে জ্ঞানার্জন করা যায়।

কোনো নির্দিষ্ট দক্ষতা বা জ্ঞান এর উপর ভিত্তি করে অনলাইন কোর্স বা প্রোগ্রম ডিজাইন, ডেভলাপ ও ডেলিভার করাকে বলা হচ্ছে অনলাইন কোর্স ক্রিয়েশন। অনলাইন কোর্স তৈরি করা বর্তমানে অনেক লাভজনক একটি দক্ষতায় পরিণত হয়েছে।

আপনি যদি কোনো বিষয়ে দক্ষ হয়ে থাকেন, সেক্ষেত্রে শুধু ঐ বিষয়ে কাজ করে নয়, বরং তা অন্যকে শিখিয়েও প্যাসিভ ইনকাম জেনারেট করতে পারছেন। অনলাইন কোর্স তৈরির ক্ষেত্রে ইন্সট্রাকশনাল ডেভলপমেন্ট, ভিডিও প্রডাকশন, অডিও এডিটিং, ইত্যাদি দক্ষতার প্রয়োজন হয়।

অনলাইন ইনকাম বা স্কিল ডেভলপমেন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারেন বাংলাটেক এর স্পেশাল অনলাইন ইনকাম ক্যাটাগরি ভিজিট করে। এছাড়া আপনার কোনো প্রশ্ন থাকলে তা আমাদের জানাতে পারেন কমেন্ট সেকশনে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button